Print
প্রচ্ছদ » বিশেষ সংবাদ

ঋণখেলাপি তালিকার শীর্ষ ১০-এর পাঁচটি পুঁজিবাজারের

ঢাকা, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৭:

রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক সোনালী ব্যাংকের শীর্ষ ২০ ঋণ খেলাপির কাছে পাওনা ৩ হাজার ২২৫ কোটি টাকা। সম্প্রতি সংসদীয় কমিটির বৈঠকে এমন চিত্র উপস্থাপন করে ব্যাংকটি। আর এই শীর্ষ ২০ ঋণ খেলাপীর প্রথম ১০টির তিনটি কোম্পানিই পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত। লোকসানে হাবুডুবে খেলেও হরহামেসাই কোম্পানিগুলোর শেয়ার দর আকাশ চুম্বি হচ্ছে। তাই বিনিয়োগকারীদের সর্তক থেকে বিনিয়োগে যাওয়া উচিত।

জান যায়, খেলাপি ঋণগ্রহীতার মধ্যে সোনালী ব্যাংকের সবচেয়ে বেশি পাওনা মেসার্স টিএন ব্রাদার্স গ্রুপের কাছে। সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী হোটেল শেরাটন করপোরেট শাখার এ গ্রাহকের কাছে সোনালী ব্যাংকের পাওনার পরিমাণ ৪৮১ কোটি ৩৭ লাখ টাকা। সোনালী ব্যাংকের খেলাপি তালিকায় এরপর রয়েছে হল-মার্ক গ্রুপ। আলোচিত এ গ্রুপের ১৬টি প্রতিষ্ঠানের কাছে ব্যাংকের পাওনা ৪৭৯ কোটি টাকা। তালিকার তৃতীয় অবস্থানে থাকা ফেয়ার ট্রেড ফ্যাব্রিকস লিমিটেডের কাছে ব্যাংকের পাওনা ৩১৬ কোটি টাকা। পাওনা আদায়ে উল্লিখিত তিনটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধেই মামলা করেছে সোনালী ব্যাংক।

শীর্ষ তিনে পুঁজিবাজারের কোন কোম্পানির নাম না থাকলেও সোনালী ব্যাংকের খেলাপি তালিকায় চতুর্থ প্রতিষ্ঠান মেসার্স মুন্নু ফ্যাব্রিকস। যা পুঁজিবাজারের তালিকাভু্ক্ত। স্থানীয় কার্যালয়ের এ গ্রাহকের কাছে সোনালী ব্যাংকের পাওনা ২২৮ কোটি টাকা। পঞ্চম অবস্থা রয়েছে মেসার্স অলটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড। এ কোম্পানিটিও পুঁজিবাজারে তালিকাভু্ক্ত।এ প্রতিষ্ঠানটির কাছে ব্যাংকের পাওনা ২১১ কোটি ৮৮ লাখ টাকা। স্থানীয় কার্যালয়ের আরেক খেলাপি গ্রাহক মেসার্স জিএমজি এয়ারলাইনসের কাছে ব্যাংকের পাওনা ১৪৮ কোটি টাকা। এ কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে প্লেসমেন্ট শেয়ার ছেড়ে এখন লাপাত্তা।

খেলাপি তালিকায় আরো রয়েছে সোনালী ব্যাংকের দিলকুশা করপোরেট শাখার গ্রাহক মেসার্স লীনা পেপার মিলস। প্রতিষ্ঠানটির দুটি ইউনিটের কাছে সোনালী ব্যাংকের পাওনা ১৩৭ কোটি টাকা। এছাড়া অষ্টম অবস্থানে থাকা মেঘনা কনডেন্সড মিল্কের কাছে ১৩০ কোটি ৭০ লাখ টাকা পাওনা রয়েছে ব্যাংকটির।এছাড়া ওটিসিতে তালিকাভু্ক্ত মেসার্স এপেক্স উইভিং অ্যান্ড ফিনিশিংয়ের কাছে পাওনা ১২৭ কোটি ৯৩ লাখ, মেসার্স সোনালী জুট মিলের কাছে ১২৬ কোটি ৮৫ লাখ।

অনুমিত হিসাব সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির ১৪তম বৈঠকে সোনালী ব্যাংক গতকাল এসব তথ্য উপস্থাপন করে। নূর-ই-আলম চৌধুরীর সভাপতিত্বে বৈঠকে মো. আব্দুর রাজ্জাক, আ খ ম জাহাঙ্গীর হোসাইন, এবি তাজুল ইসলাম, শেখ ফজলে নূর তাপস, শাহানারা বেগম, মেজর জেনারেল (অব.) এটিএম আব্দুল ওয়াহহাব ও ওয়াসিকা আয়শা খান বৈঠকে অংশ নেন।

শেয়ারনিউজ/