Print
প্রচ্ছদ » বিশেষ সংবাদ

৩০ ব্যাংকের মুনাফা ৩ হাজার ১৮৭ কোটি টাকা

ঢাকা, ১৭ আগস্ট ২০১৭:

চলতি অর্থবছরের প্রথমার্ধে (জানুয়ারি-জুন) শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ৩০টি ব্যাংকের ৩ হাজার ১৮৭ কোটি টাকা নিট মুনাফা হয়েছে। এক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি মুনাফা হয়েছে ইসলামী ব্যাংকের। তবে পরিশোধিত মূলধনের পরিমাণ তূলনামূলক কম হওয়ায়, ডাচ-বাংলা ব্যাংকের সবচেয়ে বেশি শেয়ারপ্রতি মুনাফা (ইপিএস) হয়েছে। এ সময় ব্যাংকগুলোর গড় ইপিএস হয়েছে ১.৪০ টাকা।

ব্যাংকগুলোর অর্ধবার্ষিক (২০১৭ জানুয়ারি-জুন) অনিরীক্ষিত আর্থিক হিসাবে এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

দেখা গেছে, তালিকাভুক্ত ব্যাংকগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ২৯০ কোটি ৫৮ লাখ টাকা মুনাফা হয়েছে ইসলামী ব্যাংকের। এরপরে ২৮২ কোটি ৫৮ লাখ টাকা নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে এক্সিম ব্যাংক। তৃতীয় সর্বোচ্চ ২২৭ কোটি ৯ লাখ টাকা মুনাফা হয়েছে ব্র্যাক ব্যাংকের।

অপরদিকে চলতি বছরের প্রথমার্ধে একমাত্র আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক লোকসান করে সবার তলানিতে রয়েছে। ব্যাংকটির ১৮ কোটি ২৫ লাখ টাকা লোকসান হয়েছে। এরপরে সবচেয়ে কম মুনাফা হয়েছে রূপালি ব্যাংকের। এ সময় ব্যাংকটির ২০ কোটি ১৭ লাখ টাকা মুনাফা হয়েছে। আর ২৯ কোটি ৪০ লাখ টাকা নিয়ে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংকের ও ৩৬ কোটি ২৩ লাখ টাকা নিয়ে তৃতীয় সর্বনিম্ন মুনাফা হয়েছে স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংকের।

এদিকে মুনাফায় ইসলামী ব্যাংক সবার উপরে থাকলেও ব্যাংকটি ইপিএসে নবম স্থানে রয়েছে। এক্ষেত্রে পরিশোধিত মূলধনের তুলনায় ডাচ-বাংলা ব্যাংকের সবচেয়ে বেশি মুনাফা হয়েছে। ব্যাংকটির ইপিএস হয়েছে ৭.১০ টাকা। এরপরে ২.৬৬ টাকা ইপিএস নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে ব্র্যাক ব্যাংক ও ২.৩১ টাকা নিয়ে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে ইস্টার্ন ব্যাংক।

নিম্নে শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংকগুলোর নিট মুনাফা, ইপিএস ও পরিশোধিত মূলধনের পরিমাণ টেবিলের মাধ্যমে তুলে ধরা হল। এক্ষেত্রে ব্রাকেটে () থাকা হিসাবকে ঋণাত্মক বোঝানো হয়েছে।

নাম মুনাফা ইপিএস মূলধন
ইসলামী ব্যাংক ২৯০.৫৮ কোটি ১.৮ ১৬১০ কোটি
এক্সিম ব্যাংক ২৮২.৫৮ কোটি ০.৪৪ ১৪১২.২৫ কোটি
ব্র্যাক ব্যাংক ২২৭.০৯ কোটি ২.৬৬ ৮৫৫.২১ কোটি
দি সিটি ব্যাংক ১৯০.৭৫ কোটি ২.১৮ ৮৭৫.৮০ কোটি
ইস্টার্ন ব্যাংক ১৭০.৫১ কোটি ২.৩১ ৭৩৮ কোটি
মার্কেন্টাইল ব্যাংক ১৫৭.৫৩ কোটি ২.০৩ ৭৭৬.১২ কোটি
ডাচ-বাংলা ব্যাংক ১৪১.৯৪ কোটি ৭.১ ২০০ কোটি
ওয়ান ব্যাংক ১৩৮.৬৭ কোটি ১.৯ ৭৩০.০৩ কোটি
ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক ১৩১.৬২ কোটি ১.২৫ ১০৫৪.১৩ কোটি
আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক ১১৯.০৬ কোটি ১.২ ৯৯৪.৩১ কোটি
সাউথইস্ট ব্যাংক ১১৮.৭২ কোটি ১.২৯ ৯১৬.৯৫ কোটি
ট্রাস্ট ব্যাংক ১১৭.৭৮ কোটি ২.১১ ৫৫৬.৯৭ কোটি
পূবালি ব্যাংক ১১৪.৪৬ কোটি ১.২ ৯৫০.৮০ কোটি
ন্যাশনাল ব্যাংক ১০৪.৭২ কোটি ০.৫৩ ১৯৭৫.৩৮ কোটি
প্রাইম ব্যাংক ৮৭.৯৪ কোটি ০.৮৫ ১০২৯.৩৫ কোটি
আইএফআইসি ব্যাংক ৮৩.২৪ কোটি ১.৪৮ ১১৯৫.৩০ কোটি
উত্তরা ব্যাংক ৮১.২৪ কোটি ২.০৩ ৪০০.০৮ কোটি
যমুনা ব্যাংক ৭৯.৮৪ কোটি ১.৩ ৬১৪.১২ কোটি
শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক ৭৫.৮৪ কোটি ১.০৩ ৭৭১.৪২ কোটি
এনসিসি ব্যাংক ৭০.৬০ কোটি ০.৮ ৮৮৩.২২ কোটি
প্রিমিয়ার ব্যাংক ৭০.২৭ কোটি ১.০৩ ৬৯৫.৭২ কোটি
ঢাকা ব্যাংক ৫৯.৫১ কোটি ০.৮২ ৭২২.৩০ কোটি
ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক ৫৯.২২ কোটি ০.৮৭ ৭১২.৮২ কোটি
এবি ব্যাংক ৫৭.১৭ কোটি ০.৮৯ ৬৭৩.৮৯ কোটি
ব্যাংক এশিয়া ৪৬.৩৪ কোটি ০.৭৭ ৯৮৭.০১ কোটি
মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক ৪২.২২ কোটি ০.৯৫ ৫০৯.৬৬ কোটি
স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক ৩৬.২৩ কোটি ০.৪৬ ৭৯১.৮১ কোটি
সোশ্যাল ইসলামী ব্যাংক ২৯.৪০ কোটি ০.৪ ৭৩৮.৩০ কোটি
রূপালি ব্যাংক ২০.১৭ কোটি ০.৭৩ ৩০৩.৬৪ কোটি
আইসিবি ইসলামীক ব্যাংক (১৮.২৫ কোটি) -০.২৭ ৬৬৪.৭০ কোটি
মোট-৩০টি ব্যাংক মোট-৩১৮৬.৯৯ কোটি টাকা গড়-১.৪০ টাকা মোট-২৫৩৩৯.২৯ কোটি টাকা


তালিকাভুক্ত ৩০টি ব্যাংকের মোট ২৫ হাজার ৩৩৯ কোটি ২৯ লাখ টাকার পরিশোধিত মূলধন রয়েছে। এরমধ্যে ন্যাশনাল ব্যাংকের সবচেয়ে বেশি পরিশোধিত মূলধন রয়েছে। ব্যাংকটির ১ হাজার ৯৭৫ কোটি ৩৮ লাখ টাকার পরিশোধিত মূলধন রয়েছে। তবে ব্যাংকটি মুনাফার হিসাবে রয়েছে ১৪তম স্থানে। এরপরে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১ হাজার ৬১০ কোটি টাকার পরিশোধিত মূলধন নিয়ে ইসলামী ব্যাংক মুনাফায় সবার উপরে রয়েছে। এ ছাড়া ১ হাজার ৪১২ কোটি ২৫ লাখ টাকার তৃতীয় সর্বোচ্চ পরিশোধিত মূলধন নিয়ে এক্সিম ব্যাংক মুনাফায় দ্বিতীয় সর্বোচ্চ অবস্থানে রয়েছে।

অপরদিকে সবচেয়ে কম ২০০ কোটি টাকার পরিশোধিত মূলধন নিয়ে ডাচ-বাংলা ব্যাংক মুনাফায় সপ্তম স্থানে রয়েছে। এরপরে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন ৩০৩ কোটি ৬৪ লাখ টাকার পরিশোধিত মূলধন নিয়ে মুনাফায় সর্বনিম্ন অবস্থানে রয়েছে রূপালি ব্যাংক। এছাড়া তৃতীয় সর্বনি¤œ ৪০০ কোটি ৮ লাখ টাকার পরিশোধিত মূলধন নিয়ে মুনাফায় ১৭তম অবস্থানে রয়েছে উত্তরা ব্যাংক।

বর্তমানে ৬টি ব্যাংকের পরিশোধিত মূলধন ১ হাজার কোটি টাকার উপরে রয়েছে। ব্যাংকগুলো হল- ন্যাশনাল ব্যাংক, ইসলামী ব্যাংক, এক্সিম ব্যাংক, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক, আইএফআইসি ব্যাংক ও প্রাইম ব্যাংক।

বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) সাবেক চেয়ারম্যান ড. এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম বলেছেন, ‘ব্যাংকগুলো ২০১৬ সালের ব্যবসায় ভালো লভ্যাংশ দিয়েছে। আর চলতি বছরের যে ব্যবসায় তাতে হতাশ হওয়ার কিছু নাই। এই খাতে এমন কিছু হয়নি যে ধ্বংস হয়ে যাবে। তাই ব্যাংকিং খাত নিয়ে চিন্তিত হওয়ার মত কিছু নাই।’

শেয়ারনিউজ/ডেস্ক/কে.আর