Print
প্রচ্ছদ » আন্তর্জাতিক

রাম রহিমের চাঞ্চল্যকর তথ্য ফাঁস চিকিৎসকদের!

ঢাকা, ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৭:

ভারতের হরিয়ানার স্বঘোষিত আধ্যাত্মিক ‘ধর্মগুরু’ গুরমিত সিং রাম রহিম ধর্ষণের দায়ে বর্তমানে জেলে সাজা ভোগ করছেন। ২০ বছরের সাজা হয়েছে তার। জেলবন্দি সেই ধর্ষক ‘ধর্মগুরু’ নাকি জেলে অসুস্থ হয়ে পড়ছেন। ডায়াবিটিস ধরা পড়েছে, অসুস্থ লাগছে, অস্থিরতায় ভুগছেন। রাম রহিম জেলে বসে ছটফট করছেন। জেলে রাম রহিমকে পরীক্ষা করে একথাই জানিয়েছেন চিকিৎসকেরা।

গত দু’সপ্তাহ ধরে রোহতকের জেলে বন্দি রয়েছেন ‘ধর্মগুরু’ রাম রহিম। রাম রহিমের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করতে জেল কর্তৃপক্ষ শনিবার একদল চিকিৎসককে ডেকে পাঠান। সেই দলে একজন মনোরোগ বিশেষজ্ঞও ছিলেন।

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, রাম রহিম এক ধরনের উইথড্রয়াল সিম্পটমে ভুগছেন। কারণ সে ‘সেক্স অ্যাডিক্ট’। জেলে বসে শারীরিক সুখ থেকে বঞ্চিত হয়েই রাম রহিম ছটফট করছে। এই অবস্থায় রাম রহিমের চিকিৎসার প্রয়োজন। দেরি হলে মারাত্মক সমস্যা হতে পারে বলে চিকিৎসকেরা মন্তব্য করেছেন।

পাশাপাশি এটা এখনও স্পষ্ট নয় যে বাবা রাম রহিম মাদকাসক্ত কিনা। জানা গেছে, ১৯৮৮ সাল পর্যন্ত রাম রহিম মদ্যপান করত। এখন মদ না খেলেও এনার্জি ড্রিঙ্ক ও বিদেশ থেকে আনা সেক্স টনিক নিত রাম রহিম। এমনটাই দাবি প্রাক্তন ডেরা সদস্য গুরদাস সিং তুরের।

রাম রহিম অবশ্য নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করতে চেষ্টার ত্রুটি করেননি। আদালতে এও বলেছিলেন, যে তিনি শারীরিকভাবে অক্ষম। ১৯৯০-এ যখন তিনি ডেরা প্রধান হন, তখন সকলের সামনে ঘোষণা করেন, পরিবারকে পরিত্যাগ করছেন, সাধারণ মানুষের মতো আর কোনো কামনা বাসনা তার নেই।

৮ আগস্ট রোহতকের সুনারিয়া জেলে ধর্ষণের দায়ে ভারতের স্বঘোষিত আধ্যাত্মিক ‘ধর্মগুরু’ গুরমিত সিং রাম রহিমের ১০ বছর করে মোট ২০ বছরের সাজা ঘোষণা করা হয়। একইসঙ্গে প্রতিটিতে ১৫ লাখ রুপি করে মোট ৩০ লক্ষ রুপি জরিমানা করা হয় এই বিতর্কিত ‘ধর্মগুরু’কে। এই রায় ঘোষণা করেন সিবিআই আদালতের বিচারক।

সূত্র: ইন্ডিয়া টুডে