Print
প্রচ্ছদ » জাতীয়

ঢাকা, ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮:

ফেনীর ফুলগাজী উপজেলা চেয়ারম্যান একরামুল হক একরাম হত্যা মামলার রায় ঘোষনার দিন আগামী ১৩ মাচ ধার্য করেছে আদালত। মঙ্গলবার দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ আমিনুল হকের আদালতে ফেনী কারাগার থেকে ১৪ জন আসামীকে হাজির করা হয়। জামিনে থাকা ২২ জন আসামীও আদালতে হাজিরা দেন। জামিনে থাকা ২২ জনের জামিন বাতিল করে আদালত সকল আসামীকে কারাগরে পাঠানোর নির্দেশ দেন। একই সাথে পলাতাক ১৯ জন আসামীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরওয়ানা জারি করেন। মামলায় ৫৬ জনরে বিরুদ্ধে চার্জসীট দেয় তদন্তকারী কর্মকর্তা। চার্জসীট ভুক্ত আসামী রুটি সেহেল র্যাবের সাথে বন্দুক যুদ্ধে (ক্রস ফায়ারে) মারা যায়।

পুলিশ ৫৬ জনের নাম উল্লেখ করে আদালতে চার্জসীট জমা দেয়। চার্জসীটভুক্ত ৫৬ জনের মধ্যে জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন আহব্বয়ক জাহাঙ্গীর মোহাম্মদ আদেল, পৌরযুবলীগের যুগ্ন আহব্বায়ক জিয়াউল আলম মিষ্টার এর নাম রয়েছে ।।

উল্লেখ্য ২০১৪ সালের ২০ মে সকালে ফেনী শহরের একাডেমী এলাকায় ফেনীর ফুলগাজী উপজেলা চেয়ারম্যান একরামুল হক একরামকে ফুলগাজী যাওয়ার পথে নিজদলীয ক্যডাররা তাকে কুপিয়ে গুলি করে তার গাড়ীতে তাকে পুড়িয়ে হত্যা করে। এঘটনায় একরামের ছোট ভাই রেজাউল হক জসিম বাদী হয়ে বিএনপির জেলা তাতী দলের আহব্বায়ক ও ফুলগাজী উপজেলা নির্বাচনে একরামের প্রতিদন্ধী প্রার্থী মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী মিনারের নাম সহ ৩৫/৪০ জন অজ্ঞাতনামা উল্লেখ করে ফেনী মডেল থানায় মামলা দায়ের করে। পুলিশের তদন্তাধীন মামলার সুত্র ধরে হত্যা মামলার অধিকাংশ আসামীকে ডিবি পুলিশ , থানা পুলিশ সহ র্যাব, ঢাকা, চট্রগ্রাম সহ ফেনীর বিভিন্ন স্থান থেকে আটক করে।