Print
প্রচ্ছদ » জাতীয়

আবারও বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর ইঙ্গিত



ঢাকা, ০৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭:

বিদ্যুতের দাম আবার বাড়তে পারে বলে জানিয়েছেন প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। তিনি বলেন, কিছুদিনের মধ্যে প্রতি ইউনিট বিদ্যুতের দাম ৩০ থেকে ৩৫ পয়সা বাড়তে পারে। দাম বৃদ্ধির হার হতে পারে ৫ শতাংশ।

বুধবার সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের সঙ্গে এক অনানুষ্ঠানিক আলোচনায় এ তথ্য জানান বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী। এসময় উপস্থিত ছিলেন পাওয়ার সেলের ডিজি মহাপরিচালক মোহাম্মদ হোসেন।

নসরুল হামিদ বিপু জানিয়েছেন, বিদ্যুতের দাম সমন্বয় করতে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হতে পারে। তবে সরকার যদি বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডকে (বিপিডিপি) সরাসরি সাশ্রয়ী মূল্যে জ্বালানি তেল আমদানির সুযোগ দেয় তাহলে এই দাম নাও বাড়তে পারে।

কবে নাগাদ এ সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হবে সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী জানান, এটা নির্ভর করছে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের ওপর। সংস্থাটি এরই মধ্যে গণশুনানির তারিখ নির্ধারণ করেছে। এই শুনানির ভিত্তিতে যে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে তার ভিত্তিতে দাম বৃদ্ধির তারিখ চূড়ান্ত হবে।

আগামী ২৫ সেপ্টেম্বর থেকে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন গণশুনানির তারিখ নির্ধারণ করেছে। বিইআরসি আইন-২০০৩ অনুযায়ী গণশুনানির পর ৯০ কার্যদিবসের মধ্যে বিইআরসি সিদ্ধান্ত ঘোষণা করবে।

নসরুল হামিদ এসময় ২০১৮ সালের ডিসেম্বর নাগাদ সারাদেশ বিদ্যুত সুবিধার আওতায় আসবে বলে আশা প্রকাশ করেন।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, এবারের ঈদে বিদ্যুত পরিস্থিতি ভালো ছিল। তবে মেঘনায় যে টাওয়ার ভেঙে পড়েছে সেটা এখনো পুরোপুরি ঠিক হয়নি। এই টাওয়ারটি ভেঙে পড়ার কারণে কয়েকটি জেলায় ঈদের সময় বিদ্যুৎ বিভ্রাট ঘটেছে। তবে শিগগির এটি ঠিক হয়ে যাবে বলে জানান প্রতিমন্ত্রী।

প্রতিমন্ত্রী আরও জানান, সরকার আগামী এক বছরের মধ্যে তিন হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্যে কাজ করছে।

২০১০ সালের ১ মার্চ থেকে ২০১৫ সালের ১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ছয় বছরে পাইকারি পর্যায়ে পাঁচবার এবং খুচরা গ্রাহক পর্যায়ে সাতবার বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হলো।





শেয়ারনিউজ/এমএম