Print
প্রচ্ছদ » অর্থনীতি

সঞ্চয়পত্রের সুদহারকমছে না

ঢাকা, ০৭ সেপ্টেম্বর ২০১৭:

সাধারণ সঞ্চয়কারীদের কথা চিন্তা করে আপাতত সঞ্চয়পত্রের সুদহার কমানো হচ্ছে না। তবে সঞ্চয়পত্র ব্যবস্থাপনায় সংস্কারের উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

চলতি অর্থবছরের বাজেট ঘোষণার পর অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত একাধিকবার ব্যাংক আমানত ও সরকারের নেওয়া অন্যান্য ঋণের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে সঞ্চয়পত্রের সুদহার কমানো হবে বলে জানিয়েছিলেন। বাংলাদেশ ব্যাংক তার সর্বশেষ মুদ্রানীতিতে সঞ্চয়পত্রের সুদহার কমানোর সুপারিশ করে। বিশ্বব্যাংক ও আইএমএফ তাদের বিভিন্ন পর্যালোচনায়ও এর সুদহার কমানোর পক্ষে মতামত দিয়েছে। এসব প্রতিষ্ঠান মনে করে, আর্থিক খাতে শৃঙ্খলা রক্ষায় সঞ্চয়পত্রের সুদহার কমানো উচিত। কেননা, বর্তমানে ব্যাংক আমানতের সুদহার গড়ে ৫ শতাংশের কাছাকাছি, সেখানে সঞ্চয়পত্রের সুদহার ১১ শতাংশের বেশি। সঞ্চয়পত্রের প্রতি অতিনির্ভরতার কারণে সরকারের ঋণের সুদ ব্যয় অনেক বেড়ে যাচ্ছে।

সুদহার তুলনামূলক বেশি থাকার কারণে সঞ্চয়পত্র বিক্রি এমনিতেই বাড়ছিল। তবে অর্থমন্ত্রীর ঘোষণার পর সারাদেশে সঞ্চয়পত্র বিক্রির হিড়িক পড়ে। চাপ এত বেশি ছিল যে, অনেক শাখায় সঞ্চয়পত্রের সংকট দেখা দেয়। গত অর্থবছরে এ খাত থেকে ৫২ হাজার কোটি টাকা ঋণ নিয়েছে সরকার। মূল বাজেটে সঞ্চয়পত্র বিক্রি করে সরকারের ঋণ নেওয়ার লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১৯ হাজার ৬১০ কোটি টাকা।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব হেদায়েতুল্লাহ আল মামুন জানান, সঞ্চয়পত্রের সুদহার আপাতত কমছে না। এ খাতের সমস্যাগুলো চিহ্নিত করে এর সামাজিক প্রভাব মূল্যায়ন করা হচ্ছে। এর পর সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

এটি রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত এ কথা উল্লেখ করে তিনি আরও জানান, সামাজিক সুরক্ষা নিশ্চিত করা সরকারের দায়িত্ব। সঞ্চয়পত্রের স্কিমগুলো এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে।

সঞ্চয় অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি) বাবুল কুমার সাহা জানান, সুদহার কমানো হচ্ছে এমন কোনো সিদ্ধান্তের কথা জানা নেই তার। এটি নীতি নির্ধারকদের বিষয়।

বিআইডিএসের সাবেক গবেষণা পরিচালক ড. জায়েদ বখত জানান, সঞ্চয়পত্রের সুদহার কমানো ঠিক হবে না। অবশ্য সঞ্চয়পত্রে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগের সুযোগ থাকা উচিত নয় বলে মনে করেন তিনি।

এদিকে সঞ্চয়পত্রে বিরাজমান সমস্যা চিহ্নিত করে তা সমাধানের লক্ষ্যে সংশ্লিষ্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের নেতৃত্বে সম্প্রতি পাঁচ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ কমিটিতে অর্থ মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ ব্যাংক ও এনবিআরের প্রতিনিধিদের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

সঞ্চয় অধিদপ্তরের ডিজি বাবুল কুমার সাহা জানান, এনবিআরের আইনের সঙ্গে আমাদের আইনে কোনো অসঙ্গতি রয়েছে কি-না, তা চিহ্নিত করবে কমিটি এবং সে অনুযায়ী সমস্যার সমাধান করা হবে। সঞ্চয়পত্রে অর্জিত মুনাফা তুলতে গিয়ে অনেক সময় উৎসে কর কর্তন নিয়ে হয়রানির শিকার হন সঞ্চয়কারীরা। কমিটি বিষয়টি খতিয়ে দেখবে।

অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, আগস্ট মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে এক বৈঠকে সঞ্চয়পত্রের সুদহার বিষয়ে এক পর্যালোচনা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এ বৈঠকে বলা হয়, সঞ্চয়পত্র ও ব্যাংক আমানতের সুদ হারে পার্থক্য ৬ শতাংশের মতো। সঞ্চয়পত্রের সুদ গড়ে ১ শতাংশ কমালেও সঞ্চয়পত্র বিক্রির চাপ কমবে না। সঞ্চয়কারীদের আগ্রহ এখানেই বেশি থাকবে।

অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগ (আইআরডি) সূত্রে জানা গেছে, সরকার সঞ্চয়পত্র ব্যবস্থাপনাকে আধুনিকায়নের পরিকল্পনা নিয়েছে। এ লক্ষ্যে 'সঞ্চয় অধিদপ্তর সম্প্রসারণ ও আধুনিকায়ন' শীর্ষক প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে। এ প্রকল্পের মাধ্যমে সারাদেশে সঞ্চয়পত্র অফিসগুলোকে অটোমেশনের আওতায় আনা হবে, যাতে কেনাবেচায় স্বচ্ছতা নিশ্চিত হয় ও সঞ্চয়কারীদের হয়রানি লাঘব হয়।

সঞ্চয় অধিদপ্তরের মহাপরিচালক জানান, প্রকল্পের খসড়া তৈরি হচ্ছে। এ প্রস্তাব পরিকল্পনা কমিশনে পাঠানো হবে।

অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্র বলেছে, সঞ্চয় অধিদপ্তর থেকে বিনিয়োগ সীমা সংশোধনের যে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে, তা আপাতত স্থগিত রয়েছে। নীতিমালা পরিবর্তনের চেয়ে সংস্কারের দিকেই বেশি গুরুত্ব দিতে চায় সরকার।

শেয়ারনিউজ/