Print
প্রচ্ছদ » অর্থনীতি

ইমেইলে তথ্য আহ্বান করেছে এনবিআর




ঢাকা, ২০ এপ্রিল ২০১৭:

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে (এনবিআর) এগিয়ে নেওয়া, রাজস্ব আহরণ, অভিযোগ ও রাজস্ব সংক্রান্ত যেকোনো পরামর্শ এখন থেকে সরাসরি জানাতে পারেন এনবিআর চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমানকে। ই-মেইলের মাধ্যমে মুহূর্তে রাজস্ব সংক্রান্ত তথ্য জানানো যাবে।সেজন্য এনবিআর চেয়ারম্যানের ই-মেইল ([email protected]) উম্মুক্ত করা হয়েছে।আজ বৃহস্পতিবার এনবিআর চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমানের ই-মেইল উন্মুক্ত করা হয়।


এনবিআর জানিয়েছে, অভিযোগের তাৎক্ষণিক সমাধান দেয়া হবে। রাজস্ব সংক্রান্ত পরামর্শ গ্রহণ করে তা জনকল্যাণে রাজস্ব আহরণের কাজে লাগানো হবে।রাজস্ব সংক্রান্ত পরামর্শ, অভিযোগ এনবিআর চেয়ারম্যানকে ছাড়াও আয়কর, ভ্যাট ও কাস্টমস বিভাগের ফিডব্যাক মেইলও চালুকৃত তিনটি ফিডব্যাক ই-মেইলে জানানো যাবে।

‘সুশাসন ও আধুনিক উন্নততর ব্যবস্থাপনা’ কাঠামোর আওতায় পরিচালিত হচ্ছে এনবিআর। এনবিআর রাজস্ব প্রশাসনে গতিশীলতা আনয়নে ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি গ্রহণ করেছে।দেশের সর্বক্ষেত্রে একটি রাজস্ব-বান্ধব সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠায় সকল অংশীজন ও করদাতাদের সাথে সর্ম্পক আরও সুদৃঢ় করতে কাজ করছে এনবিআর। নতুন এনবিআর গঠনে নেয়া হয়েছে পদক্ষেপ।

জানা যায়, রাজস্ব সংক্রান্ত যেকোন পরার্মশ জানাতে এবার এনবিআর চেয়ারম্যানের ই-মেইল ([email protected]) উন্মুক্ত করা হয়েছে। পাশাপাশি অংশীজন ও করদাতাদের সাথে সর্ম্পক আরো সুদৃঢ় এবং রাজস্ব সংক্রান্ত পরামর্শ, হয়রানি, অভিযোগ ও সমস্যা জানানোর লক্ষ্যে ইতোমধ্যে আয়কর, কাস্টমস ও ভ্যাট বিভাগের জন্য চালুকৃত তিনটি ([email protected], [email protected],[email protected]) ফিডব্যাক ই-মেইল খোলা হয়েছে। এসব ই-মেইলে ইতোমধ্যে করদাতা ও অংশীজনরা ব্যাপক সাড়া দিয়েছেন।


এ বিষয়ে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, ‘উন্নয়নের মূল ভিত্তি অভ্যন্তরীণ সম্পদ। মিলেনিয়াম ডেভেলপমেন্ট গোলস (এমডিজি) থেকে দেশ এখন সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট গোলস (এসডিজি) এর দিকে ধাবিত হচ্ছে। সরকারের রূপকল্প-২০২১ ও রূপকল্প ২০৪১ বাস্তবায়ন এবং ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে প্রচুর অভ্যন্তরীণ সম্পদ তথা রাজস্ব প্রয়োজন। এনবিআর উন্নয়নের অক্সিজেন রাজস্ব আহরণে সকলের সহযোগিতা নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে। তাই এখন থেকে রাজস্ব সংক্রান্ত যেকোনো পরার্মশ সরাসরি আমাদের জানানোর সুযোগ সবার জন্য অবারিত করা হলো। ’


তিনি আরও বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুযায়ী ব্যবসায়ীদের ওপর করের বোঝা না বাড়িয়ে করনেট সম্প্রসারণে কাজ করছে এনবিআর। আমরা করনেট সম্প্রসারণ ও রাজস্ব আহরণে উপযুক্ত পরিবেশ নিশ্চিত করার সর্বাত্মক চেষ্টা করছি। রাজস্ব-বান্ধব সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠায় সম্মানিত করদাতা ও অংশীজনরা রাজস্ব সংক্রান্ত যেকোন পরামর্শ আমাদেরকে ই-মেইলে জানাতে পারবেন।’




শেয়ারনিউজ/এআর