Print
প্রচ্ছদ » বিনিয়োগকারীর কথা

সাপোর্ট এবং রেসিসটেন্স কি ভাবে নির্ধারন করা হয়? (পর্ব ২)

ঢাকা, ২৬ মার্চ ২০১৭:

প্রথম পর্বেই আমি বলেছিলাম, যদি আপনি ও সাপোর্ট এবং রেসিসটেন্স সঠিক ভাবে নির্ধারণ করতে পারেন, তাহলে আপনি বিনিয়োগে ৭৫ শতাংশ পর্যন্ত লোকসান কমিয়ে আনতে পারবেন। আজ আমরা দেখব, কি ভাবে সাপোর্ট এবং রেসিসটেন্স নির্ধারণ করা হয় ?

************সাপোর্ট- রেসিসটেন্স বুঝলে লোকসান কমবে ৭৫ শতাংশ ( পর্ব-১ )*********************

বিষয়টা হাতে কলমে করা খুব জটিল মনে হবে। তারপরও একটু মনোযোগ দেওয়া যাক।

০, ১, ৩, ৫, ৮, ১৩, ২১, ৩৪,৫৫, ৮৯,১৪৪, ২৩৩, ৬১০,৯৮৭,১৫৯৭, ২৫৮৪,৪১৮১, ৬৭৬৫, ১০৯৪৭,......। এই ধারায় (Sequence) বলা হয়। যা সর্ব প্রথম Leonardo of Pisa উদ্ভাবন করেন। এই ধারার প্রত্যেক সংখ্যা হচ্ছে ঠিক তার আগের দুইটি সংখ্যার যোগফল। এই Sequence এর মূল্য ভিত্তি ০ এবং ১।

এর ১ম সংখ্যা ০, এবং ২ য় সংখ্যা ১.

৩য় সংখ্যা=১ম সংখ্যা+২য়সংখ্যা= ০+১=১

৪র্থ। " = ২য়। " + ৩য়। " = ১+১=২

৫ম। " = ৩য়। " + ৪র্থ। " = ১+২=৩

....................

এভাবে চলতে থাকবে এবং ক্রমানুসারে আসবে : ৫, ৮, ১৩, ২১, ৩৪,৫৫, ৮৯,১৪৪, ২৩৩, ৬১০,৯৮৭,১৫৯৭, ২৫৮৪,৪১৮১, ৬৭৬৫, ১০৯৪৭,......

আমরা যদি ৫ম সংখ্যা থেকে প্রত্যেক সংখ্যাকে ঠিক পরের সংখ্যা দিয়ে ভাগ করে শতকরা প্রকাশ করি তাহলে পাব ৬১.৮% বা তার কাছাকাছি।

যেমন: ৩/৫*১০০ = ৬০%,

৫/৮*১০০ = ৬২.৫%

৮/১৩*১০০ = ৬১.৯%

১৩/২১*১০০= ৬১.৮%))

তাই এই সংখ্যাকে গোল্ডেন রেশিও (GOLDEN RATIO) বলা হয়।

এই ভাবে প্রত্যেক সংখ্যাকে ঠিক পরের ২য় সংখ্যা দিয়ে ভাগ করে শতকরা প্রকাশ করলে পাব ৩৮.১৯%, পরের সংখ্যাটিতে পাব ২৩.৫২%। মুলত Golden Ratio এর উপর ভিত্তি করে ২৩.৫২% , ৩৮.১৯%, ৫০%, ৬১.৮% ইত্যাদি নির্ণয় করা হয়।

এখন কিভাবে এই সংখ্যাগুলো শেয়ার মার্কেটে ব্যবহার হয়। কোন শেয়ারের ডাউন-টেন্ট হলে সর্বোচ্চ অবস্থানে (Highest Point) থেকে সর্বনিম্ন অবস্থানে (Lowest Point) Fibonacca লাইন টানলে, উপরে থাকবে ১০০% এবং নিচে থাকবে ০%. বাকি ২৩.৬%, ৩৮.২%, ৫০% ৬১.৮% গুলোতে লাইন টানা হবে। এখন যদি আপ শুরু হয়, তাহলে ২৩.৬%এ প্রথম, ৩৮.২% এ ২য়, ৫০% ৩য় এবং ৬১.৮ এ ৪র্থ রেসিটেন্স হিসাবে পাওয়া যাবে।

কিছু আপ হয়ে ডাউন হলে পূর্বের রেসিটেন্স সাপোর্ট হিসাবে কাজ করবে।

ডাউন-টেন্ট হলে উল্টো ভাবে কাজ করবে, মানে Fibonacci লাইনের উপরে ০% এবং নিচে ১০০% হবে।

VSA এনালাইসিসে ৬১.৮% রেসিটেন্স বা সাপোর্ট খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এ লাইন খুব স্ট্রং সাপোর্ট বা রেসিটেন্স হিসাবে কাজ করে।

♦ মার্কেট বা কোন আইটেম সাপোর্ট এবং রেসিটেন্স লেভেলে যত বেশি টেষ্ট করবে, ঐ সাপোর্ট বা রেসিটেন্স ততবেশি শক্তিশালী হবে। এটাকে মেজর সাপোর্ট বা মেজর রেসিটেন্স বলে।

ওপরের লেখাগুলো খুব জটিল, তাই না? অসুবিধা নেই। আসুন নিচে সহজ করে উদাহরণ দিয়ে বুঝার চেষ্টা করা যাক।

এটাই সাপোর্ট ও রেসিসটেন্স নির্ধারন করার পদ্ধতি। এভাবে করতে হলে আমি নিজেই ১০০ হাত দূরে থাকবো। কারন এত জটিল পদ্ধতি যে, আমার মাথা ঘুরবে। বর্তমানে আপনাকে এই জটিল পদ্ধতি হাতে কলমে করার প্রয়োজন নেই। বিভিন্ন এনালাইসিস সফটওয়্যার ব্যবহার করে আপনি খুব সহজেই সাপোর্ট & রেসিসটেন্স করে নিতে পারেন।

একটি কোম্পানির সাপোর্ট এবং রেসিসটেন্স কি ভাবে নির্ধারন করা হয়?

নিচের চার্ট টা মনোযোগ দিয়ে দেখুন। শেয়ারটি গত কয়েক মাসে কয়েক বার সর্বোচ্চ ১০৪ পর্যন্ত উঠে আবার নামা শুরু করে - বুঝা যাচ্ছে ১০৫ বা তার কাছাকাছি।

কোথাও মেজর রেসিসটেন্স আছে। চার্টে দেখুন-১০৫ এ রেসিটেন্স লাইন টানা আছে। আবার নামতে নামতে ৯০/৯১ কাছাকাছি এসে থেমে যাচ্ছে। তাহলে ৯০ র কাছাকাছি বা একটু নিচের দিকে মেজর কোন সাপোর্ট লাইন আছে। চার্টে দেখুন, কোথায় সাপোর্ট লাইন টানা আছে। এই ৯০ - ১০৫ এর মধ্যেও কিনতু ছোট একটি সাপোর্ট /রেসিসটেন্স আছে, এটা তেমন গুরুত্বপূর্ণ নয়।

যাক, এখন আপনার কি করা উচিৎ?

যেহেতু ৯০ র কাছাকাছি মেজর সাপোর্ট আছে, সেহেতু আপনার এনট্রি পয়েন্ট ৯০-৯৩ হওয়া উচিৎ। এবং যেহেতু ১০৫ এর কাছাকাছি মেজর রেসিসটেন্স আছে, সেহেতু ১০০-১০৩ হবে আপনার এক্সজিট পয়েন্ট। আপনি এক্সজিট করার পর যদি রেসিসটেন্স ভেঙে উপরে উঠে, তাহলে আবার আপনার এনট্রি পয়েন্ট হবে ১০৬-১০৮। এবং এখানে এনট্রি নিলে আপনি Stop loss নিবেন ১০৩-১০৪ এ . যদি ৯২-৯৩ তে এনট্রি নেওয়ার পর সাপোর্ট ভেঙে নিচে নামে, তাহলে আপনার Stop loss হওয়া উচিৎ ৮৮ তে।

*১০০-১০৫ এ এনট্রি নেয়া একেবারেই নিরাপদ নয়। কারন রেসিসটেন্স ভাঙবে এটা জোর দিয়ে বলা যায় না। যদি না ভাঙে তাহলে আবার সে ৯২ তে ফিরে যেতে পারে, তখন আপনাকে দীর্ঘ সময় বসে থাকতে হবে।

।। প্রতিটি কোম্পানি এবং বাজার ইনডেক্স এর ক্ষত্রে উপরের উদাহরণ প্রযোজ্য।।

অতিথি লেখক অন-লাইন একটিভিস্ট : আবদুল মান্নান

******স্বল্প পুঁজির বিনিয়োগকারীদের জন্য ১৩ কৌশল****

ইচ্ছে করলে আপনিও লিখতে পারেন বিনিয়োগকারীদের উদ্দেশ্যে প্রকাশ করা হবে আনার মনের কথাও আমাদের ইমেইলকরুন[email protected]

******১০ নিয়ম মানলে বদলে যাবে আপনার পোর্টফোলিও******

******মিউচুয়াল ফান্ডে প্রতিদিন ১০০ টাকা বিনিয়োগেই কোটিপতি***

বিনিয়োগকারীর কথা এর সর্বশেষ খবর

  1. স্বল্প পুঁজির বিনিয়োগকারীদের জন্য ১৩ কৌশল,
  2. পোর্টফোলিওতে লাভ দেখালে আপনার লাভ কি?,
  3. বটম প্রাইজ চিনে শেয়ার ক্রয়ের উপায়,
  4. বাজার এগিয়ে যাবে, যেতেই হবে,
  5. বাংলাদেশের শেয়ার বাজার - জুয়ার আড্ডা,
  6. ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের কিছু স্বভাব পরিবর্তন করা অপরিহার্য,
  7. শেয়ারবাজার নিয়ে ১৫ ব্যক্তির ১৫ ভাবনা (শিক্ষনীয়),
  8. শেয়ার ব্যবসায় বার বার লস করছেন কেন?,
  9. শেয়ারের মূল্যের উপর ডিভিডেন্ডের প্রভাব কতটুকু ?,
  10. চেয়ারম্যান ও কমিশনারদের জন্য প্রশিক্ষন কেন্দ্র চালু করা প্রয়োজন